করোনা কালেও থানা দালালদের আড্ডাখানা বাচ্চুর চায়ের দোকান

 

দুর্গাপুর প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর দুর্গাপুর থানা ফটকের সামনে অবস্থিত বাচ্চুর চায়ের দোকান দালালদের অভয় আশ্রমে পরিণত হয়েছে। করোনা কালে সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও বাচ্চু দোকান নিয়ে থাকেন গভীর রাত পর্যন্ত। যেনো তার জন্য প্রচলিত কোনো আইন প্রযোজ্য নয়।
বিভিন্ন এলাকার দালাল অবস্থান নিয়ে থাকেন তার দোকানে সুকৌশলে অসহায় মানুষদের ফাঁদে ফেলে সর্বস্বান্ত করছে এই সিন্ডিকেট যায় একটি অংশ যায় তার পকেটে। তিনি আবার বিভিন্ন চাদার মাসোয়ারা নিজের কাছে গচ্ছিত রেখে কাঙ্ক্ষিত ব্যাক্তির কাছে পৌঁছে দেন। খোঁজ নিয়ে জানাযায় তার এলাকায় চলে রমরমা মাদকের মাদকের ব্যবসা যা তিনি পরোক্ষভাবে নিয়ন্ত্রণ করেন। কেউ গ্রেফতার হলে সর্বাত্মক তদবির করেন।
তার সম্পর্কে একজন বলেন, থানা গেটের অনেক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন তিনি। দালালদের হাতিয়ার, তার চরিত্র ও বাজে, নিজ এলাকায় তিনি মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ করেন।
এমন মানুষকে আইনের আওতায় আনা উচিৎ।
স্থানীয় এক সাংবাদিক বলেন, চায়ের দোকান তার লোক দেখানো ব্যবসা দালালী তার মুল পেশা। অবিলম্বে সুফি রুপি এই ব্যাক্তিকে এই এলাকা থেকে বিতাড়িত করে থানা গেটের পরিবেশ ঠিক করা প্রয়োজন। থানা মসজিদ কমিটির এক সদস্য বলেন, ঈদ গায়ের দেয়াল চায়ের দোকান বিড়ির ধোঁয়া, গানবাজনা অশ্লীল কথাবার্তা সবসময় চলতে থাকে সেখানে বিভিন্ন মানুষ আমাদের কাছে অভিযোগ দেয়। আমার নিজের ও খারাপ লাগে এ বিষয় নিয়ে আমরা আলোচনা করবো।
সরজমিন ঘুরে দেখাযায় কালো পর্দা বেষ্টিত তার দোকানের ভেতরে বিভিন্ন লেনদেন ঘটছে অপরিচিত মানুষ যেখানে প্রবেশ নিষেধ।
সুশীল সমাজের একটাই দাবী অবিলম্বে তার মতো চিন্তিত দালালের হেল্পারকে আইনের আওতায় আনা হোক।

শর্টলিংকঃ